Bangla beauty tips for fairness | গায়ের রং কালো বা শ্যামলা হওয়ার ৭টি কারণ জানুন

Rate this post
গায়ের রং কালো বা শ্যামলা হওয়ার কারণ

গায়ের রং শ্যামলা বা কালো হয়ে যাওয়া নিয়ে আমাদের Bangla beauty tips for fairness এর ধারাবাহিক পর্বে আলোচনা করা হচ্ছে।

গায়ের রং কেন শ্যামলা বা কালো হয়ে যায়? তার জন্য রয়েছে ৭টি প্রধান কারণ। আর এই ৭টি কারণ যদি তুমি না জানো তাহলে কিন্তু তুমি তোমার গায়ের রং ফর্সা কিংবা Healthy করতে পারবে না। তাই আজকের bangla beauty tips for fairness এর ধারাবাহিক  পর্বে আপনাদের জানাবো ৭টি Exact reason, যে কারণে দিনের পর দিন তোমার গায়ের রং ডার্ক বা কালো হয়ে যাচ্ছে এবং তারসাথে জানাবো কীভাবে তুমি তোমার গায়ের রং-কে Permanently আরো বেশি Fair করতে পারবে ও  Permanently গায়ের রং-কে Healthy রাখতে পারবে। ( সঠিক উপায়ে দাঁতের যত্ন নিন এবং মধুর উপকারিতা সম্পর্কে অবগত হোন )

আমাদের আজকের আর্টিকেলটা কিন্তু প্রচুর Informative এবং প্রচুর Research করে তৈরি করা। সুতরাং প্রথম থেকে শেষ অবধি ধৈর্য ধরে পড়তে হবে।

গায়ের রং ডার্ক হওয়ার ৭টি কারণ

গায়ের রং ডার্ক হওয়ার ৭টি কারণ
  • MELANIN-এর কারণে গায়ের রং কালো বা ডার্ক হয়
  • Glutathione হ্রাসের কারণে গায়ের রং ডার্ক বা কালো হয়
  • ভিটামিন-সি (Vitamin-C) এর কারণে গায়ের রং ডার্ক বা কালো হয়
  • Toxic-এর পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার কারণে গায়ের রং ডার্ক বা কালো হয়
  • অক্সিজেন এর অভাব ( lack of Oxygen) এর কারনে গায়ের রং ডার্ক বা কালো হয়
  • হাইড্রেট-এর অভাবে গায়ের রাং ডার্ক বা কালো হয়
  • শরীর Moisturize না থাকার কারণে গায়ের রং কালো বা ডার্ক হয়ে যায়

1.MELANIN-এর কারণে গায়ের রং কালো বা ডার্ক হয়

সাধারণভাবে যার ত্বকের মধ্যে MELANI-এর পরিমাণ একটু বেশি থাকে, তাঁর গায়ের রং-টা কিন্তু একটু বেশিই চাপা/কালো হয়ে থাকে। তাহলে MELANIN কী আমাদের গায়ের জন্য শত্রু? না! MELANIN কিন্তু Natural একটা উপাদান, যা আমাদের গায়ের ত্বকে থাকে। যখন আমরা রৌদ্রে যাই, তখন Automatically আমাদের গায়ের রং-টা কালো হয়ে যায় বা উপরে একটা সান টেন্ট পরে যায়। এর মূল কারণ কিন্তু MELANIN. কারণ যে মূহর্তে আমাদের ত্বক বেশি সান-কন্টাক্টে চলে আসে, সেই মূহর্তে MELANIN প্রচুর পরিমাণে তৈরি হতে থাকে। এর কারণ হচ্ছে সে ত্বকে একটা আস্তরণ তৈরি করে দেয় যাতে সূর্যের তাপ Directly তোমার ত্বককে effect বা harm করতে না পারে। তোমরা জানো যে, সূর্যের আলোতে আছে প্রচুর পরিমাণে ইউবি-রে।

2. Glutathione হ্রাসের কারণে গায়ের রং ডার্ক বা কালো হয়

Glutathione-হলো আমাদের শরীরের Natural  একটা উপাদান। আর এটা দ্বারা কিন্তু ছোটবেলায় বাচ্চারা প্রচুর Fair হয়। কিন্তু বয়সের সাথে সাথে যখন তারা বড় হচ্ছে তাদের গায়ের রং-টা কিন্তু ধীরে ধীরে শ্যামলা বা ডার্ক হচ্ছে। এর কারণ হচ্ছে শরীর থেকে Naturally Glutathione নিঃসরণ হচ্ছে, তাই আমাদের উচিত বাহির থেকেও Glutathione শরীরে সাপ্লাই  করা। আর এটা কীভাবে Naturally সাপ্লাই করবেন সেটা এই আর্টিকেলের নিম্নে সমাধান পর্বে দেওয়া আছে।

3.ভিটামিন-সি (Vitamin-C) এর কারণে গায়ের রং ডার্ক বা কালো হয়

ভিটামিন-সি (Vitamin-C)-কে বলতে পারেন আমাদের ত্বকের ডাক্তার।ভিটামিন-সি আমাদের ত্বককে Naturally রৌদ্রের তাপ বা ক্ষতিকর রশ্মি হতে protect করে। কিন্তু দৈনন্দিন জীবনে আমরা যথাযত ভিটামিন-সি কনজিউম করি না বা খাওয়া-দাওয়ার মধ্যে ভিটামিন-সি পাই না বলে আমাদের ত্বক অনেকটা রাপ এবং ড্রাই হয়ে যায়। যার ফলাফল আমাদের ত্বক ডার্ক হয়ে যায়।দৈনিক ভিটামিন-সি আমাদের দরকার 0.2 গ্রাম। এবং এটা প্রতিদিন দরকার।

4. Toxic-এর পরিমাণ বেড়ে যাওয়ার কারণে গায়ের রং ডার্ক বা কালো হয়

আমরা যখন বাহিরে যাচ্ছি, তখন আমাদের দেহ নানা রকম উপাদানের সংস্পর্শে আসে। ধূলা-বালি, ধোয়া, Pollution-আবর্জনার Attract হচ্ছে আমাদের ত্বকে। এই ধূলা-বালি, ধোয়া, Pollution-আবর্জনা কিন্তু আমাদের ত্বকের Natural গুলুকে kill করছে। আর এইভাবেই এই Toxic উপাদানগুলো আমাদের ত্বককে ডার্ক করে।

5. অক্সিজেন এর অভাব ( lack of Oxygen) এর কারনে গায়ের রং ডার্ক হয়

আমাদের শরীরে যখন অক্সিজেনের অভাব হয়,সে অক্সিজেনের অভাব তখন কিন্তু আমাদের ত্বককেও  সরাসরি ডেমেজ করে।অর্থাৎ আমাদের ত্বকের নিচে যে কোষগুলো বা সেলগুলো থাকে সেগুলো Properly অক্সিজেনের অভাবে Died Cell  হয়ে গায়ের চামড়াকে কালো বা শ্যামলা করে দেয়।

6.হাইড্রেট-এর অভাবে গায়ের রাং ডার্ক বা কালো হয়

আমাদের ত্বকে প্রয়োজন মতে হাইড্রেসান দরকার। প্রতিনিয়ত অর্থাৎ কয়েক ঘন্টা পর পর আমাদের ত্বককে হাইড্রেট রাখতে হয়। আমাদের লাইফ-স্টাইলের বদ অভ্যাসের কারণে আমাদের শরীর হাইড্রেট থাকে না আর তখনই আমাদের ত্বকের রং কালো বা শ্যামলা হয়ে যায়।

7. শরীর Moisturize না থাকার কারণে গায়ের রং কালো হয়

আপনার শরীরটি যখন সঠিকভাবে Moisturize না থাকে তখন শরীর ড্রাই হয়ে যায়। যার কারণে শরীররে ত্বকে ডার্ক একটা ভাব চলে আসে।

তো এই ছিল আমাদের ৭টি কারণ, যেগুলোর কারণে আমাদের শরীরের ত্বক প্রতিনিয়ত ডার্ক-কালো-শ্যামলা হয়ে যায়। এবার আমরা জানবো উপরোক্ত বিষয়গুলোর সমাধান কীভাবে করে আমাদের শরীরে আবার ফর্সা একটা ভাব নিয়ে আসতে পারি। তো চলুন-

প্রথমে আপনাকেMELANIN-এর ব্যাপাটা মাথায় রাখতে হবে। অর্থাৎ আপনার শরীরে MELANIN-যাতে না বাড়তে পারে যেদিকে লক্ষ্য রেখে সরাসরি সূর্যের আলোতে বের হওয়া যাবে না। এর জন্য আপনাকে ছাতা কিংবা ছায়া দেয় এমন কিছু নিয়ে বের হতে হবে। আরো কিছু করতে পারেন যে বাজারে কিছু Sun protect লোসন বা ওয়েল পাওয়া যায়। ঐগুলা ইউজ করতে পারেন।

এবার চলুন জানা যাক ভিটামিন সি নিয়ে। ভিটামিন সি naturally নিতে পারি। কিন্তু এটা কীভাবে? হা, এরজন্য আপনাকে প্রতিদিন ভিটামিন সি জাতীয় ফল-মূল (টক জাতীয় সকল ফল) খেতে হবে। এছাড়া ভিটামিন সি আপনি ঔষধের মাধ্যমেও নিতে পারেন। তবে সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে প্রাকৃতিক ফলমূলের থেকে নেওয়া।

Glutathione পূরণের জন্য আপনাকে প্রতিদিন ২-৩টি কাচা ফল-সবজি খেতে হবে। কাচা ফল-সবজিতে Glutathione কম বেশি থাকে। যখন আপনি প্রতিদিন খাবেন, তখন অটোমেটিকলি আপনার শরীরে Glutathione তৈরি হতে থাকবে।

Next হলো আমাদের শরীরকে ডি-টক্সিক করতে হবে। এর জন্য আপনাকে প্রতিদিন হালকা-পাতলা  ব্যায়াম করতে হবে। দিনে মিনিমাম ৫-১০ মিনিট এক্সারসাইজ করতে হবে। এতে করে  শরীরের ভেতরে থাকা টক্সিক বের হয়ে যাবে।

বাহির থেকে রোমে এসে সাথে সাথে ফ্রেস হতে হবে। কেননা বাহিরের ধূলো-বালি আপনার ত্বকের উপরের লেয়ারকে কালচে ভাব নিয়ে আসে।

আপনার শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ বাড়াতে হবে। এজন্য আপনাকে অর্শ্বগন্ধা নামক একটি আয়ুর্বেধিক গাছ সেবন করতে হবে দৈনিকি। এই অর্শ্বগন্ধা বাজারের যেকোনো আয়ুর্বেধিক দোকানে পাওয়া যায়। অথবা অর্শ্বগন্ধার কান্ডও সরাসরি পাওয়া যায়। এগুলো এনে বাড়িতে ব্লেন্ডার দিয়ে পাওডার তৈরি করে কিংবা সরাসরি বাজার থেকে পাউডার ক্রয় কেরও ব্যবহার করতে পারেন। এটাকে এক কাপ দুধের সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন। এতে করে আপনার শরীরে অক্সিজেনের অভাব কিছুটা হলেও দূর হবে।

সর্বশেষ আপনার শরীরকে সব-সময় হাইড্রেট রাখা। এর জন্য আপনাকে প্রত্যেক ঘন্টায় ১ গ্লাস করে পানি পান করতে হবে। এতে করে আপনার শরীরটা সিস্টেমেটিকলি হাইড্রেট থাকবে। শরীর Moisturize

করার জন্য আপনি বাজারের যেকোনো একটি Moisturize মূলক ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। তবে তার আগে ডাক্তারের পরামর্শ অবশ্যই নিবেন। তবে অনেক ক্রীম ব্যবহারের ফলে ব্রণে উঠে কিন্তু তারা ব্রণ দূর করার উপায় খুজে আর পায় না। তাই ব্রণ দূর করার উপায় পর্বটি পড়ে আসতে পারেন।

আর উপরোক্ত পয়েন্টগুলো আপনি আয়ত্ত করতে পারলে অবশ্যই আপনি আপনার শরীর থেকে ডার্ক ভাব বা কালো ভাব দূর করতে পারবেন।

See below video to know about Bangla beauty tips for fairness:

About রবীন্দ্র

Check Also

তুলসি চা খাওয়ার উপকারিতা

তুলসি চা খাওয়ার উপকারিতা এবং কিভাবে তুলসি চা বানাবেন ?

তুলসি চা খাওয়ার উপকারিতা কিংবা কিভাবে তুলসি চা বানাবেন তা সম্পর্কে অধিকাংশেই জানে না। না জানাই স্বাভাবিক। তবে আমরা প্রত্যেকেই চা পান করতে পছন্দ করি এবং হালকা নাস্তা কিংবা ঘুরাপেরার মাঝ বরাবর সময়ে চা খাওয়া যেন আমাদের মধ্যে ঐতিহ্যের ন্যায় কাজ করে। তবে কেমন হয়, যদি এই ইন্টারটেইনমেন্টে চা খাওয়াটা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য হয়ে ওঠে উপকারি! এবং রক্ষা করবে আমাদের অনেক ধরনের ক্রিটিকেল রোগ-বালাই থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.